Jharkhand

ভিডিও: 12 বছর বয়সী ছাত্র যখন সাংবাদিক হল, তার নিজের স্কুলের ফাঁস হল, লোকে বলল- সে সত্যিকারের রিপোর্টার!

jharkhnd student reporter 1659766101

খবর শুনতে

ঝাড়খণ্ডের গোড্ডায় 12 বছর বয়সী ছাত্র সরফরাজ একজন রিপোর্টার হয়ে স্কুলের জরাজীর্ণ ব্যবস্থাকে উন্মোচিত করেছে। সাংবাদিকের ভূমিকায় অভিনয় করা বারো বছরের শিশুর কিছু ক্লিপ টুইটারে ক্রমশ ভাইরাল হচ্ছে। এই ভিডিওতে দেখা যায় গোড্ডা জেলার মহাগামা ব্লকের ভিখিয়াচক গ্রামের বাসিন্দা সরফরাজ খান নামের এক ছেলে একজন রিপোর্টারের মতো সরকারি স্কুলের করুণ অবস্থা তুলে ধরছে। ছাত্রটি মাইক তৈরি করতে একটি লাঠি এবং একটি খালি প্লাস্টিকের বোতল ব্যবহার করেছিল। এরপর তিনি প্রতিবেদক হিসেবে স্কুলের ভেতরের ক্লাস পরিস্থিতি দেখান। শুধু তাই নয়, তিনি শিক্ষার্থীদের অনেক প্রশ্নও করেন। ফুটেজ রেকর্ড করতে খান তার এক সহপাঠীকে সঙ্গে নিয়ে যান। ভিডিওটি বিষ্ণুকান্ত নামে এক সাংবাদিক তার সোশ্যাল মিডিয়া হ্যান্ডেলে শেয়ার করেছেন। ছেলেটি প্রশিক্ষিত না হলেও রিপোর্টিংয়ের প্রতি তার আবেগ তার কণ্ঠের সুরে প্রতিফলিত হয় যা সবার দৃষ্টি আকর্ষণ করার জন্য যথেষ্ট।

এমনই কিছু জানালেন সরফরাজ
সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়া এই ভিডিওতে সরফরাজ দেখাচ্ছেন স্কুলের জরাজীর্ণ ব্যবস্থা। তাকে মাইকে বলতে দেখা যায়, এখন আমার গ্রামের উন্নত প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অবস্থা দেখাচ্ছি। তখন তিনি বলেন, আমাদের শিক্ষকরা বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত। এ ছাড়া পুরো চত্বরে বড় বড় ঝোপঝাড় বেড়েছে, নেই পানীয় জলের ব্যবস্থা, নেই শৌচাগার। শুধু তাই নয়, এখানে শিশুদের ক্লাস রুমে পশুখাদ্য রাখা হয়।

শিক্ষকরা সময়মতো আসেন না, পানির সমস্যা: শিক্ষার্থীরা
অন্য একটি ক্লিপে দেখা যায়, ঘরগুলো খুবই নোংরা এবং অন্যান্য অপ্রয়োজনীয় জিনিস সেখানে দেখা যায়। সরফরাজ খান বিদ্যালয়ের করুণ অবস্থার কথা উল্লেখ করে প্রতিষ্ঠানটির উন্নয়নে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানান। শিক্ষার্থী বলছে, সরকারের কাছ থেকে পাওয়া শিক্ষা তহবিলের সঠিক ব্যবহার হচ্ছে না। সরফরাজ খান পানির সমস্যা দেখিয়ে ট্যাংকি ও হ্যান্ডপাম্প মেরামতের কথাও বলেন। সরফরাজ তার প্রতিবেদনের শেষ অংশে শিক্ষকদের সময়মতো স্কুলে না আসার অভিযোগ তুলেছেন। ওই ছাত্রী জানান, দুপুর ১২টা ৪৫ মিনিটে এখনো কোনো শিক্ষক পাওয়া যাচ্ছে না।

সম্প্রসারণ

ঝাড়খণ্ডের গোড্ডায় 12 বছর বয়সী ছাত্র সরফরাজ একজন রিপোর্টার হয়ে স্কুলের জরাজীর্ণ ব্যবস্থাকে উন্মোচিত করেছে। সাংবাদিকের ভূমিকায় অভিনয় করা বারো বছরের শিশুর কিছু ক্লিপ টুইটারে ক্রমশ ভাইরাল হচ্ছে। এই ভিডিওতে দেখা যায় গোড্ডা জেলার মহাগামা ব্লকের ভিখিয়াচক গ্রামের বাসিন্দা সরফরাজ খান নামের এক ছেলে একজন রিপোর্টারের মতো সরকারি স্কুলের করুণ অবস্থা তুলে ধরছে। ছাত্রটি মাইক তৈরি করতে একটি লাঠি এবং একটি খালি প্লাস্টিকের বোতল ব্যবহার করেছিল। এরপর তিনি প্রতিবেদক হিসেবে স্কুলের ভেতরের ক্লাস পরিস্থিতি দেখান। শুধু তাই নয়, তিনি শিক্ষার্থীদের অনেক প্রশ্নও করেন। ফুটেজ রেকর্ড করতে খান তার এক সহপাঠীকে সঙ্গে নিয়ে যান। ভিডিওটি বিষ্ণুকান্ত নামে এক সাংবাদিক তার সোশ্যাল মিডিয়া হ্যান্ডেলে শেয়ার করেছেন। ছেলেটি প্রশিক্ষিত না হলেও রিপোর্টিংয়ের প্রতি তার আবেগ তার কণ্ঠের সুরে প্রতিফলিত হয় যা সবার দৃষ্টি আকর্ষণ করার জন্য যথেষ্ট।

এমনই কিছু জানালেন সরফরাজ

সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়া এই ভিডিওতে সরফরাজ দেখাচ্ছেন স্কুলের জরাজীর্ণ ব্যবস্থা। তাকে মাইকে বলতে দেখা যায়, এখন আমার গ্রামের উন্নত প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অবস্থা দেখাচ্ছি। তখন তিনি বলেন, আমাদের শিক্ষকরা বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত। এ ছাড়া পুরো চত্বরে বড় বড় ঝোপঝাড় বেড়েছে, নেই পানীয় জলের ব্যবস্থা, নেই শৌচাগার। শুধু তাই নয়, এখানে শিশুদের ক্লাস রুমে পশুখাদ্য রাখা হয়।

শিক্ষকরা সময়মতো আসেন না, পানির সমস্যা: শিক্ষার্থীরা

অন্য একটি ক্লিপে দেখা যায়, ঘরগুলো খুবই নোংরা এবং অন্যান্য অপ্রয়োজনীয় জিনিস সেখানে দেখা যায়। সরফরাজ খান বিদ্যালয়ের করুণ অবস্থার কথা উল্লেখ করে প্রতিষ্ঠানটির উন্নয়নে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানান। শিক্ষার্থী বলছে, সরকারের কাছ থেকে পাওয়া শিক্ষা তহবিলের সঠিক ব্যবহার হচ্ছে না। সরফরাজ খান পানির সমস্যা দেখিয়ে ট্যাংকি ও হ্যান্ডপাম্প মেরামতের কথাও বলেন। সরফরাজ তার প্রতিবেদনের শেষ অংশে শিক্ষকদের সময়মতো স্কুলে না আসার অভিযোগ তুলেছেন। ওই ছাত্রী জানান, দুপুর ১২টা ৪৫ মিনিটে এখনো কোনো শিক্ষক পাওয়া যাচ্ছে না।

bhartiya dainik patrika

Yash Studio Keep Listening

yash studio

Connect With Us

Watch New Movies And Songs

shiva music

Read Hindi eBook

ebook-shiva-music

Bhartiya Dainik Patrika

bhartiya dainik patrika

Your Search for Property ends here

suneja realtor

Get Our App On Your Phone!

X